মকর সংক্রান্তিতে পূণ্য লাভ করতে যে কাজগুলো করবেন,জেনে নিন

 

Advertisement

হিন্দু শাস্ত্র মতে সূর্য দেবতার সাথে যুক্ত একটি আচার অনুষ্ঠান হলো মকর সংক্রান্তি। পৃথিবীতে মানুষ জীবন টিকিয়ে রাখার জন্য স্বর্গীয় দেহকে শ্রদ্ধা জানায় মকরসংক্রান্তির মাধ্যমে। সৌর ক্যালেন্ডার অনুযায়ী নির্ধারিত ভারতীয় উৎসব গুলোর মধ্যে একটি অন্যতম উৎসব হলো মকর সংক্রান্তি।

Advertisement

পৌষ মাসে ধনু থেকে মকর পর্যন্ত সূর্যের বার্ষিক ট্রানজিট কে চিহ্নিত করে। এই স্বর্গীয় ঘটনাটি কয়েক মাস ঠান্ডা আবহাওয়ার পর ফসল কাটার মৌসুমের শুরুর সংকেত দেয়। এই দিনটিকে উৎসর্গ করে সূর্যের পূজা করা হয়। তবে ভারতে জাতিভেদে এই অনুষ্ঠানটি বিভিন্ন নামে পরিচিত। যেমন পাঞ্জাবি লোহরি, তামিলনাড়ুতে পোঙ্গল ও অসমে বিহু।

Advertisement

সূর্য ছাড়া পৃথিবী অচল। সূর্যের সাথে সামঞ্জস্য রেখেই ঋতু পরিবর্তন হয়। ফলে ভূলোকে জীবন টিকে থাকার জন্য সূর্যের অবদান অপরিসীম। যার জেরে এই দিনটিতে সূর্যের পূজা করা হয়। শাস্ত্র অনুযায়ী বিশ্বাস করা হয় যে মকর সংক্রান্তিতে গঙ্গা স্নান, উপবাস, গল্প, দান এবং ভগবান সূর্যের আরাধনা করলে সংসারে সুখ শান্তি বজায় থাকে।

Advertisement

কথিত রয়েছে যে,এই দিনে সূর্য দেবতার পূজা করার পর দান করলে তা ফলদায়ক হয়। এদিন তিলের তৈরি জিনিস দান করতে হয়। পাশাপাশি আরও ১৪ টি দান করলে মিলবে উপকার।

Advertisement

নতুন ফসল তোলার পর সেখান থেকে চাল,ছোলা, চীনাবাদাম,গুড়,বিউলির ডাল এবং তিল দিয়ে সূর্যদেব ও শনিদেবের পুজো করা হয়।‌ তবে মকর সংক্রান্তিতে অনেক নিয়ম মেনে চলা প্রয়োজন, তবে কিছু কিছু জিনিস রয়েছে যেগুলো না করলেই মঙ্গল।

Advertisement

মকর সংক্রান্তিতে যে কাজগুলো করবেন- এদিন নদীতে স্নান করা শুভ বলে মনে করা হয় তাই পারলে নদীতে স্নান করুন অথবা তা সম্ভব না হলে বাড়িতেই জলে কালো তিল রেখে স্নান করতে পারেন।

Advertisement

এদিন শনিদেব কে খুশি করলে খুবই শুভ ফল পাওয়া যায়। তাই শনিদেব কে খুশি করতে কালো তিল দান করতে পারেন।

Advertisement

এদিন তিল দিয়ে জল পান করুন। পাশাপাশি তিলের লাড্ডু এবং তিলের তৈরি যেকোনো জিনিস খেতে পারেন।

Advertisement

মকর সংক্রান্তিতে খিচুড়ি খাওয়া খুব শুভ বলে মনে করা হয়। তাই উপবাস রেখে তারপর খিচুড়ি খেতে পারেন।

Advertisement

মকর সংক্রান্তিতে যে কাজগুলো করবেন না- আপনার বাড়িতে যদি কোন ভিক্ষুক ভিক্ষা চাইতে আসে তবে তাকে খালি হাতে ফেরাবেন না। তাকে খিচুড়ি অথবা অন্য কিছু দান করুন।

Advertisement

এই দিনটিতে যেকোনোরকম নেশা জাতীয় জিনিস থেকে দূরে থাকাই মঙ্গল। তাই যত পারেন নেশা করা থেকে বিরত থাকুন।

Advertisement

যারা উপবাস রাখেন তারা কিছু নিয়ম মেনে চলেন। কিন্তু যারা উপবাস রাখেন না তাদেরও কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। মনে রাখবেন এই দিনে স্নান ও পুজোর আগে কোনো ভাবে খাবার খাওয়া উচিত নয়।

Advertisement

Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button