মাতৃহারা মিঠাইকে ভালোবাসা দিয়ে আগলে রেখেছে উচ্ছেবাবু,সিদ্ধার্থের মতো বর চাইছে নেটিজেনরা

 

Advertisement

জি বাংলায় সম্প্রচারিত একটি অন্যতম জনপ্রিয় বাংলা ধারাবাহিক হলো মিঠাই। আট থেকে আশি প্রায় অনেকেই প্রেমে পড়েছে এই ধারাবাহিকের। পড়বে নাই বা কেন মিঠাই যেমন মিষ্টি দেখতে ঠিক তেমনি তার চরিত্রটি। নিজের অভিনয়ের মাধ্যমে ইতিমধ্যে নিজের সাথে সাথে ধারাবাহিকটি কেও টিআরপি রেটিংয়ের নিরিখে শীর্ষস্থানে নিয়ে গিয়েছে।

Advertisement

ভালো-মন্দে এতদিন ধারাবাহিকটি বেশ ভালোই চলছিল। কিন্তু হঠাৎই ধারাবাহিকের গল্পের মোড় ঘুরিয়ে মিঠাই এর মা সকলকে ছেড়ে পাড়ি দিয়েছেন তারাদের দেশে। স্বাভাবিকভাবেই নিজের একমাত্র মায়ের আচমকা মৃত্যু মেনে নিতে পারেনি মিঠাই। তাই মায়ের মৃত্যুর কথা শুনতে পেয়েই সে কাঁদতেই ভুলে গিয়েছিল। এমন কি সে এতটাই শোকোস্তব্ধ হয়ে পড়েছিল যে অস্বাভাবিক আচরন শুরু করে দিয়েছিল।

Advertisement

এই ধারাবাহিকের প্রথম থেকেই মূল কেন্দ্র ছিল মিঠাই। ফলে দর্শকদের প্রিয় চরিত্রের কষ্ট কিছুতেই মেনে নিতে পারছে না দর্শক মহল। এরপর ধারাবাহিকের গল্প অনুযায়ী দেখা গিয়েছে মিঠাইয়ের দুঃসময়ে তার পাশে দাঁড়াতে সুদূর ব্যাঙ্গালোর থেকে ছুটে এসেছে তার উচ্ছেবাবু অর্থাৎ সিদ্ধার্থ। মিঠাই এর মায়ের অস্থি বিসর্জনের দিন মিঠাই এর সাথে হাত মিলিয়েছে সে।

Advertisement

উচ্ছেবাবু কে পাশে পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে মিঠাই এবং সিদ্ধার্থের বুকে মাথা রেখেই ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদতে থাকে সে। মিঠাই এর কষ্ট দেখে চোখের কোনে জল আসে দর্শকদেরও। মিঠাই এর কান্না থামানোর জন্য মিঠাই কে আশ্বস্ত করে সিড। সিদ্ধার্থ তাকে জানাই,’ইউ হ্যাভ মি মিঠাই’।‌ পাশাপাশি যেকোনো পরিস্থিতিতে তাকে পাশে পাবে বলেও জানায় সিদ্ধার্থ।

Advertisement

ওদিকে মিঠাইয়ের মায়ের শেষ কাজ সম্পন্ন করে বাড়ি ফিরলে সকলেই চিন্তা করতে থাকে মিঠাইয়ের শারীরিক পরিস্থিতি নিয়ে। সিদ্ধার্থ সবাইকে জানায় মিঠাই এর কিছু হবে না সে তার সব সময় পাশে রয়েছে। এমনকি একটি এপিসোডে মিঠাই কে শাড়ি পরিয়েও দিতে দেখা যায় উচ্ছেবাবু কে।

Advertisement

উচ্ছে বাবুর এরকম নরম অবতার মন ছুঁয়েছে দর্শকদের। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে ধারাবাহিকের বেশকিছু ক্লিপ।‌ দুঃসময়ে মিঠাই এর পাশে থাকতে দেখে অনেকেই মন্তব্য করেছেন ‘এরকম বর চাই’।

Advertisement

Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button