সদ্যোজাত সন্তানকে কোলে নিয়ে হাসপাতালের বেডে মাধ্যমিক পরীক্ষা দিলেন পরীক্ষার্থী ‘মা’

 

Advertisement

আজ ছিল আন্তর্জাতিক নারী দিবস (International Women’s Day)। এই বিশেষ দিনটি নারীদের সম্মান জানিয়ে সমাজে তাদের অবদানকে কুর্নিশ জানানোর দিন। ঠিক এরকমই একটি দিনে সকলের সামনে এলো এক মায়ের কাহিনী। এমন একজন মা যিনি গতকালই সন্তানের জন্ম দিয়ে মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানেই সদ্যোজাত সন্তানকে কোলে নিয়ে হাসপাতালের বেডে বসেই দিলেন মাধ্যমিক পরীক্ষা এবং তার অদম্য ইচ্ছাশক্তির জয়জয়কার করলেন এলাকার সমস্ত মানুষ।

Advertisement

ঘটনাটি ঘটেছে মালদা জেলার অন্তর্গত হরিশচন্দ্রপুর থানার অন্তর্গত নানারাই এলাকায়। ওই এলাকার ১৮ বছর বয়সী বাসিন্দা আনজারা খাতুন এবারের মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী। তিনি হরিশ্চন্দ্রপুর কিরণবালা বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী।

Advertisement

স্থানীয় সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী,গ্ৰামের এক যুবক মোহাম্মদ সেলিমের সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল আনজারার। তিন বছর আগে বিয়ে করেন তারা এবং দশম শ্রেণীতে উঠেই অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন তিনি। তবুও সে মাধ্যমিক পরীক্ষা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

Advertisement

অন্যদিকে ডাক্তারের দেওয়া সন্তান প্রসবের অনুমান ১৬ ই মার্চ দেওয়া হলেও গতকাল মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রথম দিনে বাংলা পরীক্ষার আগে সকালে প্রসব বেদনা শুরু হয় আনজারার। এরপর তাকে হরিশ্চন্দ্রপুর গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর সকাল সাতটা নাগাদ জন্ম দেয় এক কন্যা সন্তানের। তবে তা সত্ত্বেও পরীক্ষা দেওয়ার উৎসাহ দেখায় সে।

Advertisement

এরপর সদ্যোজাত কয়েকঘন্টা বয়সী সন্তানকে কোলে করে নিয়েই পরীক্ষা দিতে বসে যায় আনজারা‌। এরজন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে হাসপাতালে বসেই পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। পরীক্ষা চলাকালীন সেখানে উপস্থিত ছিলেন হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ আধিকারিকরা।

Advertisement

প্রথম দিনের পরীক্ষা শেষে ভালো ফলের আশায় রয়েছে আনজারা। সদ্যোজাত সন্তানকে কোলে নিয়েই সে জানায়,’সকালেই আমার কন্যা সন্তান হয়েছে কিন্তু আজকেই আমাদের পরীক্ষা শুরু হয়েছে‌। তাই পরীক্ষা তো দিতেই হবে। হাসপাতাল থেকেই পরীক্ষা দেওয়ার ব্যাবস্থা করা হয়েছিল। ভালো পরীক্ষা দিলাম। আশা করি ভালো ফলাফল করে ভবিষ্যতে কিছু করতে পারবো।’

Advertisement

Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button