তথ্যপ্রযুক্তি

সন্তানের স্মার্টফোনের প্রতি আসক্তি যেভাবে দূর করবেন

 

Advertisement

 

Advertisement

 

Advertisement

বিষেশত আজকালকার মতো সময়ের দিনে অনেক সময়ই বাবা-মাকে বলতে শোনা যায় যে তাঁদের থেকে স্মার্টফোনের বিষয়ে তাঁদের সন্তানরা বেশি জানেন। কারণ এখনকার দিনের ছেলে মেয়েরা অনেক ছোট বয়স থেকে স্মার্টফোন ব্যবহার করছে।

Advertisement

ফলে তারা স্বাভাবিক ভাবেই স্মার্টফোন, ল্যাপটপ, ট্যাবেলেটের সম্পর্কে খুব কম বয়সেই অনেক কিছু শিখে যাচ্ছে। এটার ভালো খারাপ দুটো দিকই সমানভাবে হয়েছে।

Advertisement

ভালো দিকটা হল আজকের এই প্রযুক্তি নির্ভর যুগে প্রযুক্তি ছাড়া কিছুই হয় না। সেখানে এখনকার ছেলে মেয়েরা খুব অল্প বয়স থেকে প্রযুক্তির বিষয়ে অনেক জেনে যাচ্ছে। কিন্তু এর খারাপ দিকও আছে বৈকি। দেখা যাচ্ছে আজকের অনেক ছেলেমেয়েই প্রযুক্তির প্রতি রীতিমত আসক্ত।

Advertisement

এমনকি এক-দু বছরের শিশুরাও হাতে স্মার্টফোন পেলে আর ছাড়তে চায় না। এর ফলে মানসিক দিক থেকে স্বাস্থ্যের প্রতি সমস্যা ক্রমে ক্রমে একাকীত্ব মাথার যন্ত্রণা থেকে শুরু করে কম বয়সে চোখ খারাপ ওজন বৃদ্ধি এর মত সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। জেনে নিন যে উপায়ে আপনার সন্তানের স্মার্টফোনের প্রতি আসক্তি দূর করতে পারেন।

Advertisement

১/ আপনার সন্তান ইন্টারনেট ঠিকমতো ব্যবহার করছে কিনা, সেটা আপনার জানা জরুরি। ভাববেন না যে সন্তানের হাতে স্মার্টফোন তুলে দিলেন মানে আপনি বেশ কিছুটা সময়ের জন্য ফ্রি হয়ে গেলেন। ওরা ইন্টারনেটে কী করছে, সেদিকে নজর না রাখলে কিন্তু ভবিষ্যতে বিপদ হতে পারে।

Advertisement

২/ সন্তান কতক্ষণ সময় আর কখন স্মার্টফোন ব্যবহার করবে তার একটা সময় বেঁধে দিন। আপনার সন্তান মোবাইলে ঠিক কিসের প্রতি আসক্তি,সেদিকেও নজর রাখুন।

Advertisement

৩/ সন্তানকে প্রযুক্তির হাতে ছেড়ে দেবেন না। ও কী কী গ্যাজেট ব্যবহার করে, সেটা আপনার জানা জরুরি। আপনার সন্তান কি খুব বেশি সময় টিভি দেখে? বা নিজের স্মার্টওয়াচ নিয়ে ব্যস্ত থাকে? ল্যাপটপ খুলে গেম খেলে? আপনি নজর রাখছেন দেখলে ও এগুলো ব্যবহার করা একটু কমাবে।

Advertisement

৪/ আপনার সন্তান যে সময় টিভি বা মোবাইল দেখে, সেই সময় আপনিও সঙ্গে থাকুন। একসঙ্গে বসে কিছু দেখুন। এতে ও কী দেখছে, কতক্ষণ দেখছে তা আপনার নজরে থাকবে।

Advertisement

৫/ প্রযুক্তি ব্যবহারের সুবিধে অসুবিধে দুটোই আপনার সন্তানকে ভালো করে বুঝিয়ে বলুন। ওর সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করুন। যাতে অতিরিক্ত প্রযুক্তি ব্যবহার করলে কী বিপদ হতে পারে, সেটা যেন আপনার সন্তান জানে।

Advertisement

৬/ আপনি যদি খুব বেশি প্রযুক্তিতে আসক্ত হন, তাহলে স্বাভাবিক ভাবে আপনার সন্তানও সেটাই করবে। তাই আগে আপনার নিজের আসক্তি দূর করুন।

Advertisement
Advertisement

Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button