খবর

“বাড়িতে বসে মাইনে নিতে লজ্জা করছে”-তাই নিজের বেতনের টাকায় অ্যাম্বুলেন্স দান করলেন এক শিক্ষিকা

 

Advertisement

গোটা দেশজুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। মানুষের জনজীবন থেকে শুরু করে শিল্প প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সবই প্রায় বন্ধের আওতায় রয়েছে। দেশের অন্যান্য রাজ্যের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গেও ব্যাপক আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে এই মারন ভাইরাস।

Advertisement

করোনার দাপট কমাতে ইতিমধ্যে গোটা রাজ্যজুড়ে করা হয়েছে সম্পূর্ণ লকডাউন। জারি করা হয়েছে বেশকিছু বাধা-নিষেধ। প্রথমে গত মাসের ৩০ শে মে পর্যন্ত সম্পূর্ণ লকডাউন থাকলেও তা বাড়িয়ে চলতি মাসের ১৫ তারিখ অব্দি করা হয়। বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাধানিষেধের কারণে চরম সঙ্কটের মুখে পড়েছে সাধারণ মানুষ। বিশেষ করে নুন আনতে পান্তা ফুরোয় সংসারে পরিবারের মুখে অন্ন তুলে দিতে হিমশিম খাচ্ছেন বহু মানুষ।

Advertisement

ইতিমধ্যে বহু মানুষ বিভিন্ন দুস্থ মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। বিভিন্ন সেলিব্রিটি, নামিদামি বিজনেস ম্যানদের পাশাপাশি বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রতিনিয়ত ক্ষুধার্ত মানুষদের খাবার বিলি করছেন। ‌এছাড়াও বিভিন্নভাবে বিভিন্ন রকম মানবিক উদ্যোগের মাধ্যমে মানুষের স্বার্থে কাজ করে চলেছেন একাধিক সংগঠন। সেরকমই একটি মানবিক উদ্যোগ গ্রহণ করলেন এক স্কুল শিক্ষিকা।

Advertisement

করোনা আবহে বছরখানেক ধরে সমস্ত স্কুল-কলেজ বন্ধ রয়েছে। মাঝে কেবলমাত্র কিছু কিছু শ্রেণীর জন্য স্কুল খুললেও পরে তা পুরোপুরি ভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরই মাঝে নিয়মিত বেতন পেয়ে যাচ্ছেন সরকারি স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকারা। কিন্তু এ বিষয়টি মন থেকে মেনে নিতে পারছিলেন না জলপাইগুড়ির রাজগঞ্জ ব্লকের মান্তাদারি বিএফপি স্কুলের শিক্ষিকা কেয়া সেন।

Advertisement

স্কুলে না গিয়ে বাড়িতে বসে বসে মাইনে নিতে বেশ সংকোচ বোধ করছিলেন এই শিক্ষিকা। তাই তার বড়ো ছেলের পরামর্শে একটি অ্যাম্বুলেন্স দান করলেন এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা কে। সেই অ্যাম্বুলেন্স টির দাম প্রায় ৭ লক্ষ টাকা। কেয়া দেবী এই অ্যাম্বুলেন্সটি মাসিক কিস্তির বিনিময়ে কিনেছেন।

Advertisement

ওই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে,’কেয়া দেবী আমাদের অ্যাম্বুলেন্স দান করে নিজের মানবিক দিকটি মেলে ধরলেন।‌ বহু মানুষের উপকারে আসবে তার এই মহৎ দান।’ এই প্রসঙ্গে শিক্ষিকা কেয়া দেবী জানান,’করোনাকালে বাড়িতে বসে মাইনে পাচ্ছি এ বিষয়টাতে যথেষ্ট লজ্জা হচ্ছিল।

Advertisement

তাই একটা এম্বুলেন্স কিনে এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে দান‌ করলাম যাতে এটি অসহায় মানুষের কিছু কাজে আসে।’ কেয়া দেবীর এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাতে ভোলেননি সাইবারবাসী। তার এই রূপ উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন নেটিজেনরা‌।

Advertisement
Advertisement

Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button