রাজনীতি

“কারচুপি করেছে তৃণমূল,১০০ এর বেশি আসন পাবে বিজেপি”-আদালতে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিলেন শুভেন্দু

 

Advertisement

গত রবিবার ভোটগণনা হয় বাংলার একুশের নির্বাচনের। বাংলার মানুষের পাশাপাশি এবার গোটা দেশ মুখ চেয়েছিল বাংলার নির্বাচনের দিকে। এবারের নির্বাচন একটি ঐতিহাসিক নির্বাচন ছিল তা বলাবাহুল্য। তবে প্রত্যেকে ভেবেছিল একুশের বাংলা জয়ের লড়াইটা হাড্ডাহাড্ডি হবে কিন্তু ভোটগণনার পর তেমন কিছুই দেখা যায়নি।

Advertisement

বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতারা বাংলায় এসে বারবার হুঙ্কার দিয়ে গিয়েছিল যে তারা ২০০ এর বেশি আসন পেয়ে বাংলার মসনদে বসবে। কিন্ত ভোট গণনা হতে ঠিক তার উল্টোটা দেখা যায়। দেখা যায় বিজেপি ১০০ র দন্ডিও অতিক্রম করতে পারেনি। এবং মাত্র ৭৭ টি আসন পেয়ে বাংলায় ভরাডুবি হয় বিজেপির ও ১১৩ টি আসনে জয়ী হয়ে বাংলার মসনদে বসে ঘাসফুল।

Advertisement

তবে বাংলার নির্বাচনে প্রত্যেকের পাখির চোখের মতো নজর ছিল নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রেও ওপর। কারণ সেখানে স্বয়ং তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লড়ছিল নন্দীগ্রামের ভূমিপুত্র শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে।

Advertisement

ভোট গণনা শেষ হতে প্রথমে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জয়ী হিসেবে ঘোষণা করা হয় কিন্তু পরে আবার ঘোষণা করা হয় সেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নয় বরং শুভেন্দু অধিকারী জয়লাভ করেছে। নির্বাচন কমিশনের এই সিদ্ধান্তের পর তৃণমূল সুপ্রিমো হাইকোর্টে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দেন কিন্তু পরে নির্বাচন কমিশন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি ফিরিয়ে দেন।

Advertisement

এরপর গতকাল বুধবার রাজভবনে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখরের উপস্থিতিতে তৃতীয় বারের মতো শপথ গ্রহণ করেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবং অপরদিকে ভোট পরবর্তী হিংসার বিরুদ্ধে মুরলীধর লেনে ধর্ণায় বসে বিজেপির দিলীপ ঘোষ,শুভেন্দু অধিকারী সহ একাধিক বিজেপির নেতারা।

Advertisement

এবং সেখানে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে শুভেন্দু অধিকারী জানান,”ভোটগণনায় কারচুপি হয়েছে,অনেক গণণা কেন্দ্রে বিজেপির এজেন্টদের ঢুকতে দেওয়া হয়নি। আমরা হয়তো সরকার গড়তে পারতাম না কিন্তু ১০০ এর বেশি আসনে জয়ী হতাম।” পাশাপাশি এনিয়ে আদালতে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

Advertisement
Advertisement

Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button