রাজনীতি

“আমরা যে রাজ্যেই যাবো,জিততে যাবো”-সাংবাদিক বৈঠকে জানালেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

 

Advertisement

গত শনিবার তৃণমূল ভবনে তৃণমূলের একাধিক নেতৃত্বের সাথে সাংগঠনিক বৈঠক করেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা। ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি, সাংসদ, পুর প্রশাসক এবং তৃণমূলের বিভিন্ন বিধায়করা। বৈঠকে করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে দূরবর্তী জেলার প্রতিনিধিদের ভার্চুয়ালি বৈঠকে অংশগ্রহণ করার আর্জি জানিয়ে ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Advertisement

তৃণমূলের এই সাংগঠনিক বৈঠকে তৃণমূলের অন্দরমহল এর বেশ কিছু সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। বৈঠকে তৃণমূল সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক পদে অসীন হয়েছেন অভিষেক বন্দোপাধ্যায় এবং তার জায়গায় যুব তৃনমূলের সভাপতি পদে বসেছেন আসানসোল বিধানসভা নির্বাচন ক্ষেত্রের তৃণমূল তারকা প্রার্থী সায়নী ঘোষ।

Advertisement

এরপর নতুন দায়িত্ব পেয়েই সাংবাদিক বৈঠকে প্রথমেই একহাত নিয়েছেন ভারতীয় নির্বাচন কমিশনকে। গতকাল সোমবার তৃণমূল ভবনে একটি সাংবাদিক সম্মেলনে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন,”বাংলার একুশের নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসকে জিতিয়ে মানুষ প্রমাণ করেছে যে বাংলায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই।

Advertisement

কেন্দ্রীয় সরকার বিভিন্ন এজেন্সি কে কাজে লাগিয়ে একতরফাভাবে গায়ের জোরে, মাসল পাওয়ার, মাফিয়া পাওয়ার সবকিছুই ব্যবহার করেছে। প্রতিটি ইনস্টিটিউশন কে পলিটিসাইজ করেছে ‌এমনকি এই নির্বাচনে আমরা নির্বাচন কমিশনের কোনো নিরপেক্ষ ভূমিকা পাইনি। যেখানে তামিলনাড়ুর মত রাজ্যে তিনটি দফায় নির্বাচন হয়েছে। সেখানে বাংলায় ভোট হয়েছে আট দফায়,শুধুমাত্র একটা রাজনৈতিক দলকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার জন্য।

Advertisement

আমরা যে রাজ্যে যাব, সেটা ছোটো রাজ্য হোক কিংবা বড়ো রাজ্য হোক ওই রাজ্যগুলিতে আমরা শুধুমাত্র ভোটে জিততে যাব না যাবো ওই রাজ্যটি জিততে। আমরা নিজেদের শুধুমাত্র বিরোধী রূপেই প্রতিষ্ঠা করতে চাইনা। আমাদের বলা হচ্ছে যে তৃণমূল শুধুমাত্র বাংলার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। আমি সর্বভারতীয় সম্পাদক পদে আসীন হওয়ার পরেই নিরন্তর কটাক্ষ করছে বিজেপি। যদি তাই হয়, তাহলে এত ভয়ে ভয়ে রয়েছে কেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব? আমি সেকথাই জিজ্ঞেস করছি।”

Advertisement
Advertisement

Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button